বিনোদন

লকডাউনের সময় কাটাতে টিপস মনোবিদ সন্দীপ্তার

বিরক্তিকর এই লকডাউন এর ১৫ দিন কেটেছে।  কোলাহল ব্যস্ততা থেকে দূরে থাকতে আপনাকে চারপাশে পরিস্থিতি রোজ ভয় পাওয়াচ্ছে।  এ যেন এক অদ্ভুত অনিশ্চিত জীবনযাত্রা ।

বাড়ির বাইরে বেরোলে সংক্রমণের আশঙ্কা। বাড়িতে থাকলে একই চিন্তা কবে এ অবস্থার অবসান ঘটবে। মনের ভিতর জমে থাকা দুশ্চিন্তা, অবসাদ আপনার আত্মবিশ্বাসকেও খানিকটা থাবা বসিয়েছে ঠিক করো করোনা  আতঙ্কের মতোই?

এই সময়ে সাইকোলজিস্ট অভিনেত্রী সন্দীপ্তা সেনকে একটি প্রশ্ন করা হয়। তার কোয়ারেন্টিন কেমন কাটছে? 

এ প্রসঙ্গে সন্দীপ্তা সেন এই অবসাদ কাটানোর একটি উপায় বলে দিলেন।

 সন্দীপ্তা বললেন,  প্লান করে আসলে কিছুই হয় না। এখন সবাই প্রায় বাড়িতে আছে। কিসের জন্য যে অপেক্ষা করছি কেউ জানে না ।

আমাদের  কোলাহলপূর্ণ মস্তিষ্ক বিশাল এই পরিবর্তনটা মেনে নিতে পারছে না। এর কারণে মাথার উপর পরিবর্তনের প্রভাব পড়ছে।  যার ফলশ্রুতিতে দুশ্চিন্তা অবসাদ তৈরি হচ্ছে। এঅবস্থায় সবচেয়ে আগে দরকার নিজের প্রতিদিনের লাইফ স্টাইলকে স্বাভাবিক রাখা । অফিস যাওয়ার তাড়া নেই শুধু খেয়েদেয়ে শুয়ে আছি।  একেবারেই এই রকম করবেন না যেমন আগে, সেরকম রুটিন মেনে চলুন।

 ওঠার পর কি করব?  প্রশ্নটা নিয়ে তার জবাব খুঁজতে শুরু করুন।  দেখুন আমরা কিন্তু কেউই জানি না আমাদের জীবনে এক মিনিট পর কি হবে। কিন্তু এভাবেই পরিবর্তনটা মেনে নিয়ে জীবনের সাথে যুদ্ধ করে আমাদেরকে বেঁচে থাকতে হবে।

লকডাউনে-সন্দীপ্তার-টিপস
লকডাউনে-সন্দীপ্তার-টিপসলকডাউনে-সন্দীপ্তার-টিপস

ডিপ্রেশন করতে আমরা কি কি করতে পারি। কয়েকটি উপায় বলে দিলেন সন্দীপ্তা।

* প্রতিদিনের রুটিন মেনে কাজ করতে হবে সময়মত ঘুম থেকে উঠতে হবে এবং সময় মত ঘুমাতে হবে।

* ঘরের অনেক কাজ থাকে সেগুলোতে কাজ মনে করে সেখানে নিজেকে যুক্ত করুন।

* সারাক্ষণ সোশ্যাল মিডিয়া নয়। সেখানকার অনেক ভুয়া সংবাদে  দুশ্চিন্তা কে দ্বিগুন করে দিতে পারে।

* আপনার এই কদিনে দম বন্ধ হয়ে আসছে?  তাহলে একবার আপনার বাড়ির সবচেয়ে বৃদ্ধ মানুষটাকে নিয়ে ভাবুন।   লকডাউন হোক বা না হোক তাকে কিন্তু সারাক্ষণ বাসায় বসে থাকতে হয়। এই সময়ে তাকে বেশি করে সময়  দিবেন।

* পরিবারের সবাই একসাথে লুডু, দাবার মতো ইনডোর গেম গুলো খেলতে পারেন।

* খুব  অস্বস্তি লাগলে ইউটিউবে মজার সব ফানি ভিডিও গুলো দেখতে পারেন

*মেডিটেশন করতে পারেন। 

বাস্তবের কথা চিন্তা করে এসব করছেন সন্দীপ্তা। বাবা মাকে সময়  দিচ্ছেন । বসে লুডু খেলছেন নিয়ম করে। এক সময় আসবে যখন জীবনযাত্রা আবার স্বাভাবিক হয়ে যাবে, আশাবাদী সন্দীপ্তা।

Show More

Related Articles

Back to top button