স্বাস্থ্যকথা

করোনার পর ক্যানসার মহামারির শঙ্কা

নতুন করোনাভাইরাস নিয়ে বর্তমান স্বাস্থ্যব্যবস্থার প্রেক্ষাপটে ভবিষ্যতে ক্যানসারের মহামারি হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে বলে সতর্ক করেছেন গবেষকরা। নতুন একটি গবেষণায় দেখা গেছে, করোনাভাইরাসকে মোকাবেলা করার প্রচেষ্টা ক্যানসার আক্রান্ত রোগীদের চিকিত্সা ও সেবা ‘উল্লেখযোগ্যভাবে’ প্রভাবিত করছে।

ইউরোপিয়ান জার্নাল অব ক্যানসারে প্রকাশিত এ গবেষণায়, লকডাউন এবং স্বাস্থ্যব্যবস্থার পরিবর্তন কীভাবে ক্যানসার রোগীদের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে তার বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, বর্তমান স্বাস্থ্যব্যবস্থার প্রেক্ষিতে ক্যানসার রোগীদের কেমোথেরাপি স্থগিত বা অস্ত্রোপচার পেছানোর পাশাপাশি জরুরি রেফারেলগুলো পিছিয়ে যাচ্ছে। গবেষণাটি কুইন্স ইউনিভার্সিটি বেলফাস্ট, ক্রোয়েশিয়ার স্প্লিট ইউনিভার্সিটি এবং কিংস কলেজ লন্ডন যৌথভাবে পরিচালনা করেছে। 

কুইন্স ইউনিভার্সিটির প্রফেসর মার্ক লোলার জানিয়েছেন, ‘ভবিষ্যতে ক্যানসারের মহামারি হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে। আমরা ইতিমধ্যে ক্যানসার চিকিৎসা সেবায় কোভিড-১৯ সংকটের পরোক্ষ প্রভাব দেখছি। জরুরি রেফারেল সংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে, এন্ডোস্কোপি এবং অন্যান্য শল্য চিকিৎসা পদ্ধতি স্থগিত করা হচ্ছে এবং অনেক ক্যানসার বিশেষজ্ঞকে কোভিড-১৯ চিকিৎসায় যুক্ত করা হচ্ছে। আমরা বর্তমান কোভিড-১৯ মহামারি ভবিষ্যতের ক্যানসারে মহামারিতে ছড়িয়ে দেওয়ার অনিচ্ছাকৃত পরিণতির ঝুঁকি নিয়েছি।’

তিনি আরো যোগ করেছেন: ‘আমাদের অবশ্যই ক্যানসার রোগীদের বা নাগরিকদের যারা উদ্বিগ্ন যে তাদের ক্যানসারের লক্ষণ রয়েছে, স্বাস্থ্যব্যবস্থায় অ্যাকসেস চালিয়ে যেতে উত্সাহিত করতে হবে এবং আমাদের অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে যে, সেই স্বাস্থ্যব্যবস্থাগুলো তাদের সাহায্য করার জন্য উপযুক্ত। ক্যানসার অবশ্যই কোভিড-১৯ ব্যবস্থার সমান্তরালে থাকতে হবে, যাতে ক্যানসার রোগীদের হারিয়ে যাওয়া জীবন আমরা কোভিড-১৯ এর মৃত্যুর সংখ্যায় যুক্ত করতে না পারি।’

গবেষণাটি আরো উল্লেখ করেছে, কোভিড-১৯ এর লক্ষণ ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলো অনেক বেশি সংখ্যক মানুষ চিন্তিত হচ্ছে, কম সংখ্যক মানুষ সম্ভাব্য ক্যানসারের নতুন লক্ষণগুলোর বিষয়ে পরামর্শ নিচ্ছেন।

স্প্লিট ইউনিভার্সিটির প্রফেসার এডুয়ার্ড ভার্ডোলজাকও তার উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘আমি অত্যন্ত উদ্বিগ্ন। আমরা উল্লেখযোগ্য চ্যালেঞ্জের অভিজ্ঞতা অর্জন করছি। লোকজন যেকোনো স্বাস্থ্যসেবাতে যেতে ভয় পাচ্ছেন, তাদের মনোযোগ কেবল কোভিড-১৯ রোগের উপসর্গগুলো কেন্দ্রীক হয়ে পড়ছে, যা মলদ্বার বা মূত্রাশয়ের রক্তপাত, স্তনের পিণ্ড বা ক্যানসারের অন্যান্য গুরুতর লক্ষণগুলোর প্রতি মনোযোগ কমিয়ে দিতে পারে। আমরা এমন লোকদের দেখা পেতে শুরু করেছি যারা ক্যানসার ঝুঁকিতে থেকে ক্যানসার নির্ণয়ের চেয়ে কোভিড-১৯ নির্ণয়ের আশঙ্কা করছেন।’

কিংস কলেজ লন্ডনের প্রফেসর রিচার্ড সুলিভান বলেছেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়া এবং সংবাদমাধ্যমে ২৪ ঘণ্টাই কোভিড-১৯ এর ওপর ফোকাস, আমাদের ইমোশনাল এবং সোশ্যাল কাঠামোকে নাটকীয়ভাবে পরিবর্তন করেছে। বৈজ্ঞানিক স্তরে, যে মডেলিংয়ের উপর জনস্বাস্থ্যের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে তা সম্পূর্ণভাবে কোভিড-১৯ এর মৃত্যুহার এবং অসুস্থতার দিকে মনোনিবেশিত, ক্যানসারে ক্রমবর্ধমান অসুস্থতা এবং মৃত্যু নিয়ন্ত্রণসহ অন্যান্য স্বাস্থ্য অবস্থা খুব সামান্য প্রাধান্য পেয়েছে।

Show More

Related Articles

Back to top button